উইন্ডিজকে হারিয়ে শোধ নিল বাংলাদেশ

এবার ওরা আমাদের ডেরায় এসেছে।’ ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে টেস্ট সিরিজে বাজেভাবে হারের পর হোম সিরিজ নিয়ে কথাটা বলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তার কথায় ছিল প্রতিশোধের ইঙ্গিত। সেবার উইন্ডিজের পেসে নাভিশ্বাস উঠেছিল টাইগারদের। এবার ঘরের মাঠে স্পিন ঘূর্ণিতে সাকিব-তাইজুলরা ফাঁসিয়ে দিয়েছে ক্যারিবিয়দের। নিশ্চিত করেছে দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৬৪ রানের জয়। দেশের মাটিতে ক্যারিবিয়দের বিপক্ষে টাইগারদের প্রথম জয় এটি।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রথম টেস্ট আড়াই দিনেই শেষ হয়ে গেছে। প্রথম ইনিংসে অভিষেক হওয়া নাঈমের স্পিনের সামনে দাঁড়াতে পারেনি সফরকারীরা। আর দ্বিতীয় ইনিংসে ব্রাথওয়েট-চেজদের ধসিয়ে দিয়েছে তাইজুল ইসলাম। প্রথম ইনিংসে নাঈম নেন পাঁচ উইকেট। আর দ্বিতীয় ইনিংসে ছয় উইকেট তাইজুলের পকেটে। দুই ইনিংসে তাদের ২০ উইকেটই দখল করেছে বাংলাদেশের স্পিনাররা।

উইন্ডিজের বিপক্ষে উইকেট তুলে নিয়ে টেস্টের দ্রুত তিন হাজার রান ও ২০০ উইকেট নেওয়া ক্রিকেটার হন সাকিব। ছবি: এএফপি

তৃতীয় দিন বাংলাদেশ জয়ের জন্য ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ২০৪ রানের লক্ষ্য দেয়। সেই রান তাড়া করতে নেমে ১১ রানে ৪ উইকেট হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দলের শত রানেই আগেই অলআউট হয়ে যাওয়ার কথা তাদের। কিন্তু নবম উইকেট জুটিতে ৬৩ রানের জুটি গড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আমব্রিস ৪৩ এবং ওয়ারিক্যান করেন ৪১ রান। তাদের বিদায়ে ১৩৯ রানে থামে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইনিংস।

এর আগে বাংলাদেশের দ্বিতীয় ইনিংসও ভালো যায়নি। মাত্র ১২৫ রানে অলআউট হয়ে যান মুশফিক-মুমিনুলরা। দ্বিতীয় ইনিংসে দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৩১ রান করেন মাহমুদুল্লাহ। এছাড়া মুশফিক ১৯, মিরাজ ১৮ ও মিঠুন ১৭ রান করেন। কিন্তু প্রথম ইনিংস থেকে ৭৮ রান লিড পায় বাংলাদেশ। দুই ইনিংস মিলিয়ে লিড নেয় ২০৩ রানের। প্রথম ইনিংসের লিডটাই ম্যাচ জিতিয়েছে বাংলাদেশকে। তাইজুল-নাঈমের প্রথম ইনিংসের ৬৫ রানের জুটিটাও খুব কাজে দিয়েছে।

দ্বিতীয় ইনিংসে ছয় উইকেট পাওয়া তাইজুলকে নিয়ে সতীর্থদের উল্লাস। 

বাংলাদেশ সাগরিকার মাঠে প্রথম ইনিংসে ভালো সংগ্রহ করে। মুমিনুলের সেঞ্চুরি আর ইমরুলের ৪৪ ও সাকিবের ৩৪ রানের ইনিংসে ভর করে ৩২৪ রান তোলে স্বাগতিক বাংলাদেশ। জবাবে প্রথম ইনিংসে সফরকারীরা করে ২৪৬ রানে। তাদের হয়ে প্রথম ইনিংসে হেটমায়ার ও ডাউরিচ ৬৩ রান করেন। বাংলাদেশের হয়ে দুই ইনিংসে সর্বোচ্চ সাত উইকেট নেন তাইজুল। এছাড়া নাঈম হাসান ও সাকিব পান পাঁচটি করে উইকেট। মেহেদি মিরাজ নেন তিন উইকেট। ম্যাচ সেরা হন মুমিনুল হক।

লাইক এবং শেয়ার দিয়ে পাশে থাকুন
20

Comments

comments