ভোটে মাশরাফি, সাকিব নয়

তারকা ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মুর্তজা  রোববার আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম তুলবেন। তবে  শনিবার দিনভর আরেক তারকা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানকে নিয়ে একই গুঞ্জন চললেও শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী হচ্ছেন না তিনি।

রাতে জাতীয় ওয়ানডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা এবং টেস্ট ও টি২০ দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান গণভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছেন। প্রধানমন্ত্রী এ সময় সাকিবকে আগামী বিশ্বকাপ পর্যন্ত খেলা চালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। ওই সময় গণভবনে উপস্থিত আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সমকালকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে সকাল থেকে খবর ছড়িয়েছিল, মাশরাফি ও সাকিব তাদের নিজ নিজ এলাকা থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী হয়ে  রোববার দলের মনোনয়নপত্রের ফরম ক্রয় করবেন। মাশরাফির বাড়ি নড়াইল এবং সাকিবের বাড়ি মাগুরা সদরে। বিভিন্ন টিভি চ্যানেল ও অনলাইন গণমাধ্যমের খবরেও বলা হয়, মাশরাফি ও সাকিব আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে টেলিফোন করে জানিয়েছেন, রোববার তারা মনোনয়ন ফরম তুলবেন।

মাশরাফি বিন মুর্তজার  রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে নড়াইল-২ আসনের জন্য দলীয় মনোনয়নপত্রের ফরম সংগ্রহ করবেন বলে দলীয় সূত্র জানিয়েছে।

মাশরাফি ক্রিকেটের পাশাপাশি তার নিজ এলাকা নড়াইলে নানা জনকল্যাণমূলক কাজে সম্পৃক্ত। ছোটবেলা থেকে তিনি নানা দুস্থ ও সাধারণ মানুষকে সাহায্য-সহযোগিতা করে আসছেন। গত বছরের সেপ্টেম্বরে মাশরাফির নেতৃত্বে ‘নড়াইল এপপ্রেস ফাউন্ডেশন’ নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন যাত্রা শুরু করে। এই প্রতিষ্ঠান দুস্থ মানুষকে আর্থিক সাহায্য, স্বাস্থ্যসেবা, কৃষি বীজ বিতরণ, সোলার প্যানেল সরবরাহ, শিক্ষা, তথ্যপ্রযুক্তি, খেলাধুলা, সাংস্কৃতিক কার্যক্রম, পরিবেশসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কাজ করছে এবং ব্যাপক প্রশংসাও কুড়াচ্ছে।

গত ১৫ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক ভিডিও কনফারেন্সে মাশরাফিকে দেশের অন্যতম সেরা সম্পদ হিসেবে মন্তব্য করায় নড়াইলে আনন্দ মিছিল হয়।

মাশরাফি ও সাকিবের মনোনয়ন ফরম কেনার খবর প্রচার হওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সারাদিনই ব্যাপক আলোচনা চলে। অনেকেই এ খবরে আগ্রহ প্রকাশ করেন। অনেকে তাদের এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানান। কেউ কেউ আবার তাদের খেলোয়াড়ি জীবনের কথা মাথায় রেখে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

নড়াইল প্রতিনিধি জানান, মাশরাফি নড়াইল-২ আসন (নড়াইল পৌরসভা ও সদর উপজেলার আটটি ইউনিয়ন এবং লোহাগড়া উপজেলা) থেকে নির্বাচন করছেন। এ খবর এখন জেলাবাসীর মুখে মুখে। শনিবার দুপুরে আওয়ামী লীগ নেতাদের বরাত দিয়ে বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলে এ খবর প্রচারের পর নড়াইলবাসী উচ্ছ্বাস প্রকাশ এবং শহরে মিষ্টি বিতরণ করেন।

এ ব্যাপারে মাশরাফির নিকটাত্মীয়, লোহাগড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এ. কে. এম ফয়জুল হক সমকালকে জানান, আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহের ব্যাপারে মাশরাফির সম্মতি রয়েছে। তিনি রোববারই ফরম সংগ্রহ করবেন।

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট অচিন চক্রবর্তী বলেন, বিষয়টি টেলিভিশনসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে জেনেছেন তিনি। দল যাকে মনোনয়ন দেবে, তার পক্ষেই থাকবেন তারা।
নড়াইল পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি মলয় কুণ্ডু বলেন, মাশরাফি একজন সৃজনশীল ও পরোপকারী মানুষ। তিনি এই আসনে নৌকার মাঝি হলে দল-মত নির্বিশেষে মানুষের সমর্থন ও ভোট পাবেন।

নড়াইল পৌর মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর বিশ্বাস বলেন, মাশরাফি নড়াইলের গর্বিত সন্তান। তিনি এ আসন থেকে নির্বাচন করলে আওয়ামী লীগের সবাই তার পক্ষে থাকবে এবং জয় ছিনিয়ে আনবে।

লাইক এবং শেয়ার দিয়ে পাশে থাকুন
20

Comments

comments